উল্টাপাল্টা

শুন্য শুন্যালয় ৩১ মার্চ ২০১৬, বৃহস্পতিবার, ০৭:১১:০১পূর্বাহ্ন রম্য ৪৩ মন্তব্য

ঘুম ভেঙ্গেই এই ভোরবেলা মনটা বেশ ফুড়ুৎ ফুড়ুৎ করছে।
বাইপোলার ডিজঅর্ডারের হাইপারমেনিক স্টেজের মত অবস্থায় আছি এখন, সেরাম একখান স্বপ্ন দেখে উঠেছি। আপনাদের না শোনাইলেই না।
স্বপ্নে দেখলাম, আমাকে সোনেলা ব্লগের মডারেটর বানিয়ে দেয়া হয়েছে। নাচতে নাচতে ঐশ্বরিয়া স্টাইলে স্যুটেড, কোট প্যান্ট পরে প্রথম দিন ব্লগে ঢুকলাম। জবে আমার প্রথম দিন, কিন্তু কেউ আমারে অভিনন্দন জানাইলো না। টেবিলের উপরে ফাইল নাই, কোন কাগজপত্র নাই, এইটা কেমুন অফিস? কোনই কাজকর্ম নাই। তবে যে ড্যাস ড্যাস ভাই বলছিল, কাজের চাপে হিমশিম অবস্থা, আমি আবার কাজ ছাড়া একদম থাকতে পারিনা।
আরামে আরামকেদারায় বসে টেবিলের উপরে পা উঠাইয়া মনে মনে কি করা যায় কাজ খুঁজতেছি, হঠাৎ-ই ইউরেকা! কবে কোন জ্ঞানীগুনীজন বলে গিয়েছিলেন, অলস মস্তিস্ক নাকি শয়তানের কারখানা, আমার কি আর সাধ্য জ্ঞানীর মুখের উপর কথা বলি!!
ঠিক করলাম, পোস্টে লেখকের জায়গায় সব নাম উল্টায় পাল্টাইয়া দিমু, সবাই সোনেলায় ঢুইক্কা ক্যাম্নে তব্ধা খাবে –এইটা ভেবেই মনটা পুলকিত  হয়ে গেলো, আশেপাশে কোন বড়ভাই থাকলে নির্ঘাত মুখে আংগুল ঢুকিয়ে দিয়ে সিটি দিয়েই ফেলতাম (সৎ পোস্টে স্বর্গবাস, অসৎ পোস্টে সর্বনাশ)।
ফি আমানিল্লাহ বলে, কাজ শুরু করে দিলাম।
শুরুতেই রিমি রুম্মান আপুর লেখা কত কি-ই তো কথা ছিল কবিতায় লেখকের নাম দিলাম ব্লগার সজীব। রম্য পন্ডিত ব্লগার সজীব এমন কঠিন আবেগী লেখা, তাও আবার কবিতা দেখে কি পাগল হয়ে হেসেই উঠবে? তার তো আবার হাঁসের খামার থুক্কু মুরগীর খামার আছে।
দেবশিশু লেখায় লেখকের নাম আনলাম, মেহেরী তাজ। তাজ খুবই কবিতা পছন্দ করে, পৃথিবীর কোন কঠিন ভাষাই তাজকে দমিয়ে রাখতে পারেনি, ওর কাছে পানির মতো ব্যাবাক কিলিয়ার। তবে এইখানে বেশ প্রতিযোগিতা হইছিল, কবি নাসির ভাই, যিনি সারাজীবন কবিতা লিখতে লিখতে শব্দের অবস্থা জলবৎ তরলং বানিয়ে ফেলেছেন, তার নামও আনতে চাইছিলাম, যাই হোক, কবি বলেছেন, বেটার লাক নেক্সট টাইম। 🙂
মায়া আপুর একলা পাখি কবিতায় লেখকের নাম পোস্টাইলাম জিসান শা ইকরাম।
একলা পাখি কাঁদে
জীবন যুদ্ধে পরাজিত বন্দী ভবের ফাঁদে
একলা পাখি বোঝে
নিদান কালে শূন্য ডালে কেউনা তারে খোঁজে…….. জিসান ভাই ছন্দ দিয়ে দুলে দুলে কবিতা লিখতে গিয়ে চেয়ার সমেত উল্টে পড়েছে এইটা ভাবতে ভাবতেই তো আমি ছান্দিক হয়ে গেলাম। :p
অনিকেত নন্দিনী আপুর মহাভারতের গল্প-ব্রক্ষ্ম এ লেখকের নাম আঁঠা দিলাম নাসির সারোয়ার। এতদিনে টিচারের কাছ থেকে শিখে শিখে অবশেষে তিনি লিখেই ফেললেন মহাভারত।
নীলাঞ্জনা নীলাপুর অক্ষরের আনন্দ পোস্টে লেখকের নাম দিলাম অপার্থিব। এমন কবিতা পেয়ে সিরিয়াস টাইপের লেখক অপার্থিব ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে কি করবে ভাবতেই আছি, আর নীলাপু তার অক্ষরেরর আনন্দ খুঁজতে চলে যাবে মৌনতা রিতু আপুর বাড়ি। প্রেম ছাড়া যে কিছুই লিখতে পারেনা, তাকে যদি দিয়ে দেই রিতু আপুর আমার তুঘলকি চিন্তা-১? 🙂
ইলিয়াস মাসুদ ভাইয়ার স্মৃতি ও স্কেচ পোস্টে লেখকের নাম জোড়া দিলাম মজিবর রহমান। আমাদের সবার প্রিয় মজিবর ভাইয়া, নিশ্চিত দৌঁড়াবে চোখ অথবা পাগলের ডাক্তারের কাছে। আমি কবে থাইক্কা ছবি আঁকতেছি? আমি কোথায়? আমি কে? আমার বউ কই?
খসড়া ভাইয়াপুর অবধারিত মুক্তিযুদ্ধ -২ ও রুখে দাও সন্ত্রাস পোস্টটির  লেখক যদি হয় অরুনি মায়া? মায়াপুকে এমন প্রতিবাদী চরিত্রে দারুন মানিয়ে যাবে, পোলাগো কাপড় কাঁচার মত যে ধোলাই দিতে পারে, সে সন্ত্রাসীও পারবে।
মনের হাহুতাশ পুরনের জন্য নীতেশ দা র নাম লাগায় দিলাম লীলাবতীর লাইফ সাইকেল-বউ-অবাধ্য লাড়কি পোস্টে। লীলাবতী আসতেছে না বহুদিন, ইচ্ছা আছে তার সব পোস্ট অন্য লেখকদের দিয়া দিমু আস্তে আস্তে।
আরেকটা ইচ্ছে আছে, সবার সুন্দর পোস্টগুলোতে লেখকের নামের জায়গায় শুন্য শুন্যালয়ের নাম লাগায় দিমু। সবার আগে কৃন্তনিকার দেবী পোস্ট নিমু। এইভাবে নিতে থাকলে ডাবল, ট্রিপল এমনকি ব্রায়ান লারার মতো চারশো পোস্ট আমার জন্য কুনই ব্যাপার না। আপাতত জিসান ভাইয়ার ফিরে ফিরে আসা‘তে শুন্য শুন্যালয়ের নাম বসিয়ে দিয়েছি। সবাই এখন বন্ধুদের মধ্যে শুন্যরে খুঁজতেছে, আরে বোকা, শুন্য থাকে জলে, স্থলে, আকাশে, মুগ্ধতায়, সবখানে।
ব্লগার সজীবের অর্থ বুঝে রঙিন হার্টের ইমো দিন-বিপদ আছে পোস্টের লেখকের ঘরে নাম দিলাম মারজানা ফেরদৌস রুবা। আপুর আবার হার্ট এটাক না হয় :p
মা মাটি দেশ ভাই যদি মুহাম্মদ আরিফ হোসেইনের রসিকের মত এমন কিছু পোস্ট লেখা শুরু করেন, তাইলে কেমন হবে?
আবু খায়ের আনিছ লেখায় বিস্তর ছবির ব্যবহার করেন (?), তাই মরুভূমির জলদস্যুর জাফলং-এ জল-পাথরে পোস্টে লেখকের নাম দিয়া দিলাম তার নাম।
অরণ্যের পোস্ট বিদায় বন্ধু যদি দিয়ে দেই খসড়া ভাইয়াআপুকে? হায় হায় আপু, আপনি এতদিন সিগারেট খেতেন বুঝি? :p
নন্দিনী আপুর পোস্ট জাবেদাখাতার নিচে নাম দেখতেছি লেখক ছাই ভাউ, মানে ছাইরাছ হেলাল। কেউ একটু নন্দিনী আপুরে খবর দ্যান, তার সব পোস্ট কারা জানি নিয়া যাইতেছে।
স্বপ্ন-মিথুনের পোস্টে আর কোন লেখকের নাম আনার সাহস করলাম না, তা বড্ড বেমানানও হতো, এই দুজনের লেখা শুধু তাদের দুজনকেই মানায়। আসল কথা হচ্ছে, ভ্যাকুয়াম ক্লিনারের ভয় আছে না (ভালোবাসাবাসি দ্রষ্টব্য) !! :p
কেউ পোস্ট পেয়ে সুখী, কেউ দিয়ে, কেউ দিয়েও সুখী, পেয়েও সুখী। আর কেউ হয়তো সুখের অর্থই জানেনা।
বিনা বেতনে একদিনে এরচেয়ে বেশি কাজ করা সম্ভব না। স্বপ্নও আজকাল বিনা বেতনে বেশি লম্বা হয়না!  ইশ্ যদি সত্যিই মডারেটর হওন যাইতো!! 🙁

৮৫০জন ৮৪৮জন
0 Shares

৪৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ