দ্বৈততা

শুন্য শুন্যালয় ২১ আগস্ট ২০১৫, শুক্রবার, ০৩:১০:৩১অপরাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৬২ মন্তব্য

নীড়,
নিমন্ত্রণ পেয়ে আসবে কি সময়ে, অসময়ে, অসময়ের সময়ে? গ্যাস বেলুনের মত তাবুর খুঁটে বেঁধে রেখেছি নির্জলা চাঁদ। ঝোপের ঝাড়গুলো নিলডাউনের মতো প্রণাম ঠুকছে আধ মাড়ানো ঘাসে। পুঁথির নৈবেদ্যে ঝিঁঝিপোকা কি যেন বলেও থেমে যায়, থামিয়ে যায়, থামানোকে থামিয়ে যায়। উপবাসে চেটেপুটে নিই বিবাগী রাত্রির নিশি পাওয়া সুর। ক্ষুধার্তের মতো তোমাকে পড়ি, পড়তেই থাকি চিৎ হয়ে পায়ের উপর পা উঠিয়ে। উৎসুক ঈর্ষান্বিত গাছের পাতা উঁকিঝুঁকি ছায়া ফেলে চাঁদের আলোয়। উপুড় হয়ে নজর বাঁচাই তোমার অক্ষরের চোখ। একাকিত্বের অভ্যাস শিখে নিতে পারেনি তবুও হাঁটিহাঁটি পা পা একারা। ঘর পালানো ফেরারী খুঁজে ফিরছে ক্রস কাটা আঙ্গিনা। ভিড়ভাড়ে বাড়ন্ত দীর্ঘশ্বাসে দীর্ঘমেয়াদি অধর ওমের শুনশানতা যেন গুহার প্রতিধ্বনি শোনাচ্ছে আমায়। সব পাওয়ারও যে নির্বাসন হয় নীড়, নির্বাসিত হয় কেউ পেয়েও। দুহাত মেলা বৃষ্টি বুকের অপেক্ষায় মিলিয়ে যাওয়া আম্রসুবাস।
নীড়, আসবে কি যদি না পাও আমন্ত্রণ?

৫২৪জন ৫২৪জন
0 Shares

৬২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ