বাঁশ লইবেন … বাঁশ!

আর্বনীল ৫ মে ২০১৬, বৃহস্পতিবার, ০১:৩৬:২৭অপরাহ্ন অন্যান্য, বিবিধ ২৩ মন্তব্য

স্থানঃ সিলেটের চৌহাট্টায় মানরু শপিং মলে ওয়ালটনের মোবাইল সার্ভিস সেন্টার
তারিখঃ ২০-০৩-১৬
সময়ঃ আনুমানিক দুপুর ১২টা।

আমি ওয়ালটন ‘প্রিমো ই৪’ সেট নিয়ে গেলাম। মোবাইলটার সমস্যা হল চার্জ ৬০% এর নিচে চলে আসলে ডাটা ইউস করা যেতনা। অটো অফ হয়ে যেত। আবার অন করলে বেটারী লো দেখাতো! তবে চার্জে লাগানো অবস্থায় এই সমস্যাটা হতনা। মানে চার্জ ৬০% বা তারও কম থাকলেও চার্জে লাগিয়ে ডাটা ইউস করা যেত। এতে ফোন অফ হতনা। আর টোটালী ডাটা ইউস না করলে ফোন স্বাভাভিক ভাবেই চলতো। এক কথায় ফোনটা ফেলে রাখার মত তেমন কোন সমস্যাই ছিল না। ব্যাবহার করার মত যথেষ্ট ভালোই ছিল। যাইহোক, ভাবলাম হয়তো ব্যাটারিতেই সমস্যা। ইদানীং চার্জও কম থাকছে। হালকা ফুলেও গেছে। তাই ব্যাটারিটা চেঞ্জ করে দেখলাম। ফোন একদম অকে। কোন সমস্যা নাই। সমস্যাটা ব্যাটারিতেই এটা বুঝতে আর বাকী নেই। তাও ভাবলাম একবার দেখিয়েই আনি। যেহেতু ওয়ালটনের সার্ভিস সেন্টার আমার বাসা থেকে মাত্র ১০ মিনিটের রাস্তা। তো আগের ব্যাটারিটা লাগিয়ে নিয়ে গেলাম। শ্যামলা এক তরুনী ফোনটা রিসিভ করল। বারকোড স্কেন করে বলল, আপনার ওয়ারেন্টি শেষ হয়েছে তিন দিন আগে। মানে ১৭-০৩-১৬ তারিখে। এখন আপনাকে ফোনটা রেখে যেতে হবে। আমরা চেক করে আপনাকে জানিয়ে দিব কত খরচ হবে। বললাম ওকে! তবে আমার ফোন যে রেখে যাব এতে কোন রিস্ক নাইতো?? উনি বলল, সফটওয়্যার আপডেট দেয়া হলে আপনার ডাটা ডিলেট হয়ে যাবে। বললাম শুধুই এটাইতো?? বলল, হ্যা। আমি বললাম ওকে!

সন্ধ্যায় ফোন দিয়ে বলল, আপনার সেটের মাদারবোর্ড নষ্ট হয়ে গেছে। ঠিক করতে ১১০০ টাকা লাগবে। শুনে অবাক হয়ে গেলাম। বললাম এত টাকা দিয়ে কাজ করাব না। বলল, কাজ না করালে ফোনটা আপনাকে রিটার্ন নিয়ে যেতে হবে। পরদিন গেলাম ফোন আনতে। গিয়ে দেখি ফোন আর অনই হয়না। বললাম ফোনতো অন হচ্ছেনা। ডিলিভার কাউন্টারে বসা অল্প বয়সী সুন্দরী তরুনী ফোনটা চার্জে বসালেন। মিনিট পাচেক। লাভ হলনা। পরে একজনকে ডেকে বলল, এই সমস্যা। লোকটা ফোন নিয়ে ভেতরে গেল। আমি বসে রইলাম প্রায় এক ঘন্টা। এরপর এসে বলল, আপনার ফোনটা ডেড হয়ে গেছে। তাই অন হচ্ছে না। জানতে চাইলাম ডেড হবে কেন? আমিতো ডেড ফোন দিয়ে যাইনি। বলল, নন-ওয়ারেন্টি ফোনে সফটওয়ার আপডেট দিলে ফোন ডেড হবার চান্স থাকে। ওয়ারেন্টি ফোনে থাকেনা। বললাম তো এই কথা আমাকে আগে কেন জানান হয়নি? যখন ফোন দিয়ে গেলাম সেদিনওতো জানায় নি। আমি জিজ্ঞেস করায় শুধু ব্যাকাপ ডিলেট হতে পারে বলল। কিন্তু ডেড হতে পারে এ ব্যাপারে একবারও জানানো হয়নি কেন?
উত্তরে বলল, ঠিক আছে আপনাকে যেহেতু আগে জানানো হয়নি আপনি রেখে যান। আমরা জানাব আপনাকে।

প্রায় একমাস কেটে গেল। জানায়নি। এরপর আমি নিজেই ফোন করলাম সেই একই কথা আপনাকে জানাব। এরপর অনেকটা বিরক্ত হয়ে একজন ভাইয়ের সহযোহিতায় ওয়ালটনের একজন বড় কর্মকর্তাকে জানালাম। উনি সব জেনে বলল, ঠিক আছে আমি নিজে গিয়ে দেখছি। উনি আসলেই দেখতে গেছিল কিনা আমার এতেই সন্ধেহ আছে। যাইহোক, উনি বলল, সার্ভিস সেন্টার থেকে নাকি আমাকে আগেই এই ব্যাপারে (ডেড হতে পারে) জানানো হইছিল। সব শেষে উনার পরামর্শ – কষ্ট করে সেটটা ঠিক করিয়ে নিয়ে আইসেন। আমি বললাম, ভাইয়া আমাকে যে রিসিভ কপিটা দেয়া হইছে তাতে দেখুন ‘ব্যাকাপ ডিলেট হতে পারে’ এই সামান্য ব্যাপারটা সীল মেরে দিছে। অথচ ‘ফোন ডেড হতে পারে’ এতবড় ব্যাপারটা এখানে নাই। এরপরো বলছেন এরা আমাকে জানাইছে?? আচ্ছা ধরে নিলাম জানাইছে। যদি জানিয়েই থাকে তবে যেদিন রিটার্ন আনতে গেলাম (২০ তারিখ দিছি ২১ তারিখ আনতে গেছি) সেদিন ওরা বলল কেন যে, আপনাকে যেহেতু আগে জানানো হয়নি ফোনটা রেখে যান পরে আমরা জানাব ?
এরপর উনি আর কোন কথা বলেনি।

মোবাইলটা ঠিক করাব কি না ভাবতে ভাবতে আজ আবার ফোন দিলাম। সার্ভিস আইডি বলে জিজ্ঞেস করলাম কি অবস্থা?
বলল আমি নাকি জানাই নি কাজ করাব কি না? এজন্য এটা পেন্ডিং এ পরে আছে। বললাম এটাতো আপনাদের জানানোর কথা ছিল। এরপর বলল, আমি ১০ মিনিট পরে আপনাকে জানাচ্ছি। ১০ মিনিট পর ফোন দিয়ে বলল, স্যার আপনার সেট এর মাদারবোর্ড চেঞ্জ করতে খরচ আসবে ১২০০ টাকা। (মাত্র ৮-১০ দিনের ব্যাবধানে ১০০ টাকা বেড়ে গেছে। আগে বলছিল ১১০০)। বললাম আগেতো ১১০০ বলছিলেন। বলে স্যার আমাদের প্রোডাক্ট এর দাম আপডেট হইছে।
:/

যাইহোক শেষ পর্যন্ত ১২০০ টাকার বাশ খেতেই যাচ্ছি। জানি এই ১২০০ টাকার সাথে আর হাজার দুই হাজার টাকা হলেই এই কনফিগারেশন এর নতুন মোবাইল কিনতে পারব। কিন্তু এই মোবাইলটাই যে আমার বড় বেশী প্রিয়। তিন মাসের টিউশানীর টাকা জমিয়ে কিনছিলামতো… 

৬৯৭জন ৬৯৭জন
0 Shares

২৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ