রমনা পার্কের ভিতর এক লাল জামা পড়া মেয়ে সাথে একজন ছেলে, বসে আছে পার্কের বেঞ্চে, ঘনিষ্ঠভাবে।
মেয়েটার মাথা ছেলেটার কাঁধে, দুজনে আকাশে তাকিয়ে বলছিল মনের কত কথা।

“ এই শুনো, আমরা কিন্তু বিয়ের পরেও এভাবে বের হব। পার্কে পার্কে ঘুরবো। তুমি কিন্তু একদম না করতে পারবে না। ” – বলছে মেয়েটা।
– আচ্ছা বাবা, যো হুকুম জাঁহাপনা। তুমি যেই হিটলার টাইপ, তোমার হুকুম না মেনে উপায় আছে? 🙁
– মানে কি? কি বলতে চাও? আমি হিটলার? :@

“ আরে না না তুমি তো আমার স্বপ্নের রাজ্যের একমাত্র রাণী। (3 ”
– তোমার স্বপ্নের রাজ্যে প্রজা কারা? ^:^
– কোন প্রজা নেই। শুধু তুমি আর আমি। তুমি রাণী, আমি রাজা। কয়েকদিন পর একটা টুকটুকে রাজকন্যা আসবে, একদম তোমার মত! 😀

আকাশের দিকে তাকিয়ে তারা এই রাজা রাণীর স্বপ্ন দেখেছিল।
আকাশ অনেক বিশাল। নিজে যেমন বিশাল অন্যকেও তেমনি বিশাল স্বপ্ন দেখায়। আকাশের দিকে তাকিয়ে মানুষ সংকীর্ণ চিন্তা করতে পারে বলে মনে হয় না।

হয়তো একদিন সমস্ত স্বপ্ন চুরমার করে দিয়ে মেয়েটি প্রতিষ্ঠিত কোন এক ছেলেকে বিয়ে করবে। হয়তো মন থেকে করতে চাইবে না, কিন্তু বাস্তবতা বা অর্থের মোহে অন্ধ হয়ে করবে। তখন তাদের কেউ আর স্বপ্ন দেখবে না।

হয়তো বা একদিন তাদের বিয়ে হবে। তাদের ঘরে জন্ম নিবে ফুটফুটে এক রাজকন্যা। তখন তারা রাজকন্যা কে নিয়ে স্বপ্ন সাজাবে যে কোন এক রাজপুত্র এসে তাকে নিয়ে যাবে। 🙂

মানুষ বাঁচে স্বপ্ন দেখে। সেজন্য প্রথমটি কেউ আশা করে না। সবাই দ্বিতীয়টি চায়। ভালোবাসার অপমৃত্যু কখনো কেউ চায় না কিন্তু আফসোস! বেশিরভাগ সময় মানুষ যা চায় না তাই হয়। আর তাই বেশিরভাগ মানুষেরই আর স্বপ্ন দেখা হয় না। খুব ভালোভাবে তারা বেঁচে থাকে কিন্তু তাদের অনুভূতি থাকে না। অনুভূতিহীন অদ্ভুত রোবটের মত জীবনযাপন করে তারা!

৫৩২জন ৫৩২জন
0 Shares

১২টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ