ক্যামন নিঃশব্দে হারায়

রিমি রুম্মান ১৫ জানুয়ারি ২০১৫, বৃহস্পতিবার, ১০:১১:৪৯পূর্বাহ্ন একান্ত অনুভূতি ৩৩ মন্তব্য

তখন মিরপুর থেকে আজিমপুর এসে যেয়ে ক্লাস করি। থাকি মামা’র বাসায় পাঁচতলায়। একতলায় ঢাকা ভার্সিটিতে পড়ুয়া এক ছেলে থাকে। চলনে নিতান্তই সাদামাটা, পোশাকে আদ্যিকালের। সে-ও থাকে তার মামা’র বাসায়। বলা যায়, আমরা দু’জনই আমাদের মামা’দের অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলা ! 🙂

বিকেলে নায়ক অহেতুক হাওয়া খেতে বের হয়। ঘাড় বাকা করে কারনে অকারনে উপরে তাকায়। আমি গা’য়ে অনাবশ্যক বৈকালিক হাওয়া লাগাতে বারান্দায় আসি। ঘাড় নুইয়ে কারনে অকারনে নিচে তাকাই। :p এরই মাঝে হলে সিট পেয়ে যাই। পড়াশুনার চাপে নায়ক সমাচার ভুলে যাই। পড়ার চাপেও ঠিক নয়… চোখের আড়াল হলে মনের আড়াল হওয়া টাইপের ব্যাপার হবে হয়তো ! মাঝে ২/১ দিন জরুরী তলব দরকার হলে মামী নায়ককে দিয়ে খবর পাঠায়। ভার্সিটি’তে আসা-যাওয়ার পথে ইডেন হয়ে খবরটা দিয়ে যান তিনি অচেনা মানুষের মতন নীরবে। পাঁচদিন হলে, আর ছুটির দুইদিন মামা খালা’র বাসায় বেড়ানো__ সময়গুলো চমৎকার কাটে।

একদিন “সন্ধানী” আসে ইডেনে। সবার দেখাদেখি আমিও স্বেচ্ছায় রক্তদান করি। পরের দু’দিন বন্ধ,বিধায় সেদিনই রওয়ানা দেই মামার বাসার উদ্দেশ্যে। বাড়ির একতলার সিঁড়ি পর্যন্ত গিয়েই জ্ঞান হারাই। নায়কের মামী আমার মামী’কে খবর পাঠায়। হন্তদন্ত হয়ে ছুটে আসে মামী। জ্ঞান ফিরলে দেখি আমি নায়কের মামার বাসায় ! অনেকগুলো উৎসুক মুখ আমার দিকে চেয়ে। আহা ! সেই সময়টাতে শিয়রে নায়কের দেখা মিলতো যদি, তবে এমন বারংবার রক্ত দিতে, জ্ঞান হারাতে আপত্তি ছিল না !   :p

অদ্ভুত নিষ্ঠুর নিয়তি…

দুর্দান্ত রঙবেরঙের দিন…

রঙবেরঙের স্বপ্ন___ ক্যামন নিঃশব্দে হারায়, হায় !

৩৪৯জন ৩৪৯জন
0 Shares

৩৩টি মন্তব্য

মন্তব্য করুন

লেখকের সর্বশেষ মন্তব্য

ফেইসবুকে সোনেলা ব্লগ